বরিশালে ঘাতক বাস কেড়ে নিল ৫ তাজা প্রাণ

মার্চ ২২ ২০১৯, ১২:৫১

এম.কে. রানা ॥ বরিশালে যাত্রীবাহী বাস ও মাহিন্দ্রার মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ৩ জনসহ মোট ৫ নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শেবাচিমে নেওয়ার পর আরো দুইজনের মৃত্যু হয়। বরিশাল-বানারীপাড়া মহাসড়কের তেতুল তলা নামক স্থানে আজ শুক্রবার (২২ মার্চ) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এয়ারপোর্ট থানা পুলিশ ঘাতক বাস ও মাহিন্দ্রা আটক করেছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহমান মুকুল জানিয়েছেন, নগরীর নথুল্লাবাদ বাসস্ট্যান্ড থেকে ৯ জন যাত্রী নিয়ে একটি মাহিন্দ্রা (নম্বর বরিশাল থ-১১-০৯০৭) বানারীপাড়ার উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। বরিশাল-বানারীপাড়া মহাসড়কের তেতুলতলা নামক স্থানে বানারীপাড়া থেকে ছেড়ে আসা দুর্জয় পরিবহনের (নম্বর বরিশাল ব-১১০০৬২) একটি বাস বেপরোয়া গতিতে আসলে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মাহিন্দ্রাটির ৩ যাত্রী নিহত এবং ৬ যাত্রী গুরুতর আহত হলে তাদের উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। তবে শেবাচিম হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, শেবাচিমে নেওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো ২ জনের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন, বিএম কলেজের শিক্ষার্থী শিলা (২৫), খোকন (৪০), মানিক (৩০), আলফা চালক সোহেল (২৫) ও পারভীন (৫০)। আহতরা হলেন দুলাল (৩৫), তন্নি ((৭), তামিম (৭) ও সুমন (১৫)। আহতদের মধ্যে তামিম ও তন্নির অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

স্থানীয়রা জানান, বানারীপাড়া থেকে ছেড়ে আসা বাস দুর্জয় পরিবহন বেপরোয়া গতিতে এসে আলফা মাহিন্দ্রাকে মুখোমুখি ধাক্কা দেয়। এতে আলফার তিনজন যাত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এরপর পুলিশ এসে আহতদের উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে পাঠায়।

এয়ারপোর্ট থানার এসআই ফারুক জানান, ঘাতক বাসটি দুর্ঘটনার পর দ্রুত গতিতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে নথুল্লাবাদ এলাকায় দায়িত্বরত পুলিশ বাসটি আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এয়ারপোর্ট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই অরবিন্দ বিশ্বাস জানান, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘাতক বাস ও দুর্ঘটনার শিকার মাহিন্দ্রাটি থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।




আজকের আবহাওয়া

পুরাতন সংবাদ খুঁজুন

নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  

আমাদের ফেসবুক পাতা


এক্সক্লুসিভ আরও

%d bloggers like this: